করোনায় চট্টগ্রামে আরো ৩ জনের মৃত্যু

চট্টগ্রাম, ১৬ জুন, ২০২১ (বাসস) : চট্টগ্রামে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্তদের ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে নতুন করে সংক্রমণ শনাক্ত হয় ১০৭ জনের। সংক্রমণ হার ১৬ দশমিক ৫৪ শতাংশ।
সিভিল সার্জন কার্যালয়ের রিপোর্টে জানা যায়, নগরীর সাতটি ও কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রামের ৬৪৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নতুন করে ভাইরাস শনাক্ত ১০৭ জনের মধ্যে শহরের বাসিন্দা ৬০ জন ও নয় উপজেলার ৪৭ জন। উপজেলায় আক্রান্তদের মধ্যে হাটহাজারীতে ১২,সীতাকু-ে ৯, রাঙ্গুনিয়ায় ৮, রাউজানে ৭, বোয়ালখালীতে ৪, মিরসরাইয়ে ৩, আনোয়ারায় ২ এবং পটিয়া ও চন্দনাইশে ১ জন করে রয়েছেন। জেলায় করোনাভাইরাসে মোট শনাক্ত ব্যক্তির সংখ্যা এখন ৫৫ হাজার ২৯৭ জন। এদের মধ্যে শহরের ৪৩ হাজার ৬৯১ জন ও গ্রামের ১১ হাজার ৬০৬ জন।
গতকাল নগরীর একজন ও গ্রামের দু’জন মারা যান। একজন পুরুষ ও দু’জন নারী। মৃতের সংখ্যা বেড়ে এখন ৬৪৮ জন। এতে শহরের ৪৫৪ জন ও গ্রামের ১৯৪ জন।
উল্লেখ্য, গতকাল দুই জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এ মাসের প্রথম ১৫ দিনে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২৬ জনে পৌঁছেছে। মৃত্যুশূন্য ছিল ৩, ৪ ও ১৪ জুন। করোনার সর্বোচ্চ সংক্রমণ হার রেকর্ড হয় ১৩ জুন, ২৪ দশমিক ৫৯ শতাংশ। এদিন চলতি মাসের সর্বোচ্চ ২২৫ জনের নমুনায় জীবাণুর উপস্থিতি শনাক্ত হয়।
ল্যাবভিত্তিক রিপোর্টে দেখা যায়, ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস ল্যাবে ২১৮ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এখানে গ্রামের ৯ জন ও শহরের ৮ জন জীবাণুবাহক পাওয়া যায়। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১৫০টি নমুনার মধ্যে শহরের ১৫ ও গ্রামের ১০টিতে করোনার জীবাণু থাকার প্রমাণ মিলে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১৩২ জনের নমুনা পরীক্ষায় গ্রামের ২৫ ও নগরীর ১৭ জনের শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি চিহ্নিত হয়। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ৩০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হলে গ্রামের ২ জনসহ ৬ জন করোনা শনাক্ত হন। নগরীর বিশেষায়িত কোভিড চিকিৎসা কেন্দ্র আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের আরটিআরএল-এ ৪৮টি নমুনায় রাঙ্গুনিয়ার একটিসহ ১৪টির রেজাল্ট পজিটিভ আসে।
নগরীর বেসরকারি ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরির মধ্যে মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ২৩টি নমুনা পরীক্ষা করে নগরীর ২টি এবং মেডিকেল সেন্টারে ৪টি নমুনার মধ্যে নগরীর একটিতে ভাইরাসের অস্তিত্ব ধরা পড়ে। এদিন চট্টগ্রামের ৪২ জনের নমুনা কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে পাঠানো হয়। পরীক্ষায় সবগুলোর ফলাফল নেগেটিভ আসে।
এদিন বেসরকারি ল্যাবরেটরি শেভরন, ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল, এপিক হেলথ কেয়ার এবং সরকারি ল্যাব পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি।
ল্যাবভিত্তিক রিপোর্ট বিশ্লেষণে সংক্রমণ হার পাওয়া যায়, বিআইটিআইডি’তে ৭ দশমিক ৮০ শতাংশ, সিভাসু’তে ১৬ দশমিক ৬৬, চবিতে ৩১ দশমিক ৮২, চমেকে ২০, আরটিআরএলে ২৯ দশমিক ১৬, মা ও শিশু হাসপাতালে ৮ দশমিক ৬৯, মেডিকেল সেন্টারে ২৫ এবং কক্সবাজার মেডিকেল কলেজে ০ শতাংশ।

Print Friendly, PDF & Email

Related Articles

Back to top button