ফটিকছড়ি দক্ষিণ ধর্মপুর আলোকধারা পাঠাগারের স্থায়ী কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধন

ফটিকছড়ি দক্ষিণ ধর্মপুর আলোকধারা পাঠাগারের স্থায়ী কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধন বক্তারা
সুশিক্ষিত সমাজ গঠনে পাঠাগারের বিকল্প নেই
বিশ্ব অলি শাহানশাহ্ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভান্ডারীর (ক.) ৩৩তম ওরশ শরীফ উপলক্ষে ১০ অক্টোবর সকালে ধর্মপুর হাজ¦ী আব্দুল মালেক মার্কেটে মাইজভান্ডারী গাউছিয়া হক কমিটি দক্ষিণ ধর্মপুর শাখার পরিচালিত আলোকধারা পাঠাগারের স্থায়ী কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধন ও বৃক্ষ রোপন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। উদ্বোধনকালে নেতৃবৃন্দ বলেন, পুথিগত বিদ্যা আর পরহস্তে ধন, নহে বিদ্যা নহে ধন হলে প্রয়োজন। শুধুমাত্র পুথিগত বিদ্যা দিয়ে প্রকৃত মানুষ হতে পারেনা। গ্রামাঞ্চলের বেশিরভাগ শিক্ষার্থী একাডেমিক জ্ঞানের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে ফলে যুগের চাহিদার সাথে তাল মিলিয়ে যেকোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় প্রত্যাশিত ফলাফল না পেয়ে হতাশার অতল গহবরে ডুব দেয়, সেই হতাশা দূর করে আশার ফুল ফুটানোর জন্য এধরনের পাঠাগার সময়ের দাবী, যেখান থেকে সর্বস্তরের শিক্ষার্থীরা যেকোনো ধরনের জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, মাদকমুক্ত ও সু-শিক্ষিত সমাজ গঠনে পাঠাগারের বিকল্প নেই। আলোকধারা পাঠাগারের কার্যালয় ফিতা কেটে শুভ উদ্বোধন করেন গাউছিয়া হক কমিটি দক্ষিণ ধর্মপুর শাখার সভাপতি সমাজসেবক ফজল করিম কোম্পানি। উপস্থিত ছিলেন গাউছিয়া হক কমিটি দক্ষিণ ধর্মপুর শাখার সাবেক সভাপতি ব্যাংকার জাহেদ আসিফ, প্রবাসী সিনিয়র সদস্য দিদার আলম ইমন, সাধারণ সম্পাদক ব্যাংকার সাব্বির, পাঠাগারের কর্মকর্তা শাহাবুদ্দিন রকি, নজির আহমদ শাহ্ নুরানি মাদ্রাসার শিক্ষক পেয়ারুল ইসলাম, আসিক, জাহেদ, অহিদ প্রমুখ। শেষে নজির আহমদ শাহ নুরানি মাদ্রাসার ছাত্রদের নিয়ে মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে নিম গাছের ছাড়া রোপন করা হয়। উল্লেখ্য, ২০০৭ সালে ১১ ফেব্রুয়ারি সংগঠক এম মোরশেদ রিমন আলোকধারা পাঠাগারটি প্রতিষ্ঠা করেন।

Print Friendly, PDF & Email

Related Articles

Back to top button