ভাসানচরে অবস্থানরত বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মায়ানমার নাগরিকদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে রেড ক্রিসেন্ট এর মত বিনিময়

 

২৪ নভেম্বর, চট্টগ্রামঃ নিরাপদ আশ্রয় প্রদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক কক্সবাজার জেলায় অবস্থানরত মায়ানমার থেকে আগত বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত ১০ লাখ মায়ানমার নাগরিকদের মধ্য থেকে ১৮ হাজার নাগরিককে নোয়াখালী জেলার ভাসানচরে নব নির্মিত আশ্রয় কেন্দ্রে স্থানারিত করেছে। সরকারের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে শুরু থেকেই বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বাস্তুচ্যুত এই মায়ানমার নাগরিকদের জন্য বিভিন্ন প্রকার মানবিক সহায়তা যেমন-স্বাস্থ্য সেবা, পানি ও পয়নিষ্কাশন, ফুড ও নন ফুড আইটেম এবং ভিআরআর কার্ডক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় ভাসানচরে অবস্থানরত নাগরিকদের জন্যেও বিভিন্ন ধরনের সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি।

গতকাল সোসাইটির চেয়ারম্যান, মেজর জেনারেল (অব.) এটিএম আব্দুল ওয়াহ্হাব এর নেতৃত্বে এক উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল ভাসানচর সফর করে সোসাইটির বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেছে। প্রতিনিধি দলে ছিলেন সোসাইটির ভাইস চেয়ারম্যান নূর-উর-রহমান, নব নির্বাচিত ব্যাস্থাপনা পর্ষদের সদস্য মো. মঞ্জুরুল ইসলাম, শেখ মো. শফিউল আযম, সিকদার নুর মোহাম্মদ দুলু, সোসাইটির মহাসচিব ফিরোজ সালাহ উদ্দিন, যুব ও স্বেচ্ছাসেবক বিভাগের পরিচালক ইমাম জাফর সিকদার, আইএফআরসি’র এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক আলেকজান্ডার ম্যাথিও এবং আইএফআরসি’র হেড অব ডেলিগেশন ইন বাংলাদেশ সঞ্জীব কুমার কাফলে। প্রতিনিধি দলটি ভাসান চর আশ্রয় প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক কমরেড এম রাশেদ সাত্তার এর সাথে প্রকল্প বিষয়ে কথা বলেন এবং সাইক্লোন মোকাবেলায় ভাসান চরের জনগোষ্ঠীর উপস্থাপনায় এক মহড়া পরিদর্শন করে। এই মহড়া দেখতে আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোঃ মোজাম্মেম হোসাইন ও ইউ এন এইচ সি আর এর কক্সবাজারের অফিস প্রধান। প্রতিনিধি দলটি ভাসান চরে অবস্থানরত জনগোষ্ঠীর মধ্যে মানবিক সহায়তাও প্রদান করেন।

আজ সকালে জেলা রেড ক্রিসেন্ট এর ভাইস চেয়ারম্যান ডা: শেখ শফিউল আজম এর সভাপতিত্বে প্রতিনিধি দলটি চট্টগ্রাম জেলা রেড ক্রিসেন্টে মাঠ প্রাঙ্গনে ভাসানচরে অবস্থানরত বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মায়ানমার নাগরিকদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় সভা করেন।

মত বিনিময় অনুষ্ঠানে সোসাইটির চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সরকারের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে যে কোন দুর্যোগ মোকাবেলায় অংশগ্রহণ করে থাকে। কক্সবাজারে অবস্থানরত বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মায়ানমার নাগরিকদের জন্যেও সোসাইটির পক্ষ থেকে বিভিন্ন প্রকার মানবিক সহায়তা সেবা প্রদান করে আসছে। সে আরও বলেন অতি জরুরি সেবা প্রদান করে সবসময় মানুষের জীবন বাঁচাতে সচেষ্ট থাকবে রেড ক্রিসেন্ট।

সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময় সভায় প্রতিনিধি দলের সাথে উপস্থিত ছিলেন সোসাইটির ম্যানেজিং বোর্ড সদস্য সিকদার নুর মোহাম্মদ দুলু, চট্টগ্রাম জেলা রেড ক্রিসেন্ট সেক্রেটারী মো: আসলাম খাঁন, সিটি রেড ক্রিসেন্ট সেক্রেটারী আব্দুল জব্বার, চট্টগ্রাম সিটি ও জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের কার্যকরী পর্ষদ সদস্য মোঃ আনোয়ার আজম, রাশেদ খান মেনন, মোঃ আব্দুল মোনাফ, মোঃ ইস মাইল হক চৌধুরী ফয়সাল, ইউনিটে ইউএলও আব্দুর রশিদ খান,যুব রেড ক্রিসেন্টের যুব প্রধান গাজী ইফতেখার হোসেন ইমু, জেমিসন রেড ক্রিসেন্ট মাতৃসদন সদন হাসপাতালের ইনচার্জ মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, নাসিং ও মিডওয়াফারী ইনস্টিটিউটের প্রধান নিয়তি বড়ুয়া এবং মর্জিনা আক্তার সহ ইউনিট ও  হাসপাতালের বিভিন্ন কর্মকর্তা গণ।

প্রতিনিধি দলটি সাংবাদিক সন্মেলনের পূর্বে চট্টগ্রাম জেলা রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের আওতাধীন জেমিসন রেড ক্রিসেন্ট নার্সিং ইনস্টিটিউটের ১০ তম ব্যাচের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামেও অংশগ্রহণ করেন।

পরে প্রতিনিধি দলটি চট্টগ্রাম যুব রেড ক্রিসেন্ট এর আয়োজনে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেয় এবং করোনাকালীন চট্টগ্রাম যুব রেড ক্রিসেন্ট স্বেচ্ছাসেবকদের ভূয়সী প্রশংসা করেন। এসময় করোনা মোকাবেলাসহ জনকল্যাণে জেলা ও সিটি ইউনিটের নেয়া বিভিন্ন কর্ম পরিকল্পনা ও পদক্ষেপ তুলে ধরেন যুব সদস্যরা এবং বিভিন্ন দিকনির্দেশনামূলক পরামর্শ দেন সোসাইটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) এটিএম আব্দুল ওয়াহ্হাব।

Print Friendly, PDF & Email

Related Articles

Back to top button