বাসচাপায় প্রাণ গেলো বাবা-ছেলে ও এক মোটরসাইকেল আরোহীর

রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে বিআরটিসি বাসের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী বাবা ও ছেলে এবং নগরীতে বাসের চাপায় এক মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু হয়েছে। আলাদা দুটি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার সকালে।
রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকালে অফিস যাওয়ার পথে ছেলেকে স্কুলে রাখতে গিয়ে উপজেলার বিজয়নগর বাসনিতলা এলাকায় রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কে বাস চাপায় বাবা-ছেলে নিহত হন। নিহতারা হলেন- দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাটা থানার আবদল আজিজের ছেলে সাজু মিয়া (৩২) ও তার সাত বছরের স্কুলপড়ুয়া ছেলে আব্দুল্লাহ আল আলিফ।
রাজশাহীর গোদাগাড়ী প্রেমতলী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ কামরুজ্জামান মিয়া বলেন, নিহত সাজু মিয়া একটি এনজিওতে কর্মরত। গোদাগাড়ীতে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন। বৃহস্পতিবার সকালে তার ছেলে আব্দুল্লাহ আল আলিফকে গোপালপুর কিন্ডার গার্টেন স্কুলে রাখতে যাচ্ছিলেন। এই সময় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে আসা রাজশাহীগামী বিআরটিসি বাস সরাসরি তাদের মোটরসাইকেলটিকে চাপা দিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে ঘটনাস্থলে বাবা ও ছেলের মৃত্যু হয়। তবে বিআরটিসি বাসটি গাছের সঙ্গে লেগে দুমড়ে মুচড়ে গেলেও এর কোনো যাত্রী, চালক বা হেলপার কেউই হতাহত হননি। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজ করেন।
এদিকে নগরীর আহম্মেদ নগরে রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাস চাপায় এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মোটরসাইকেল চালকের পরিচয় জানা যায়নি। বাসটি তাকে চাপা দিয়ে পালিয়ে গেছে। দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল চালকের মাথা শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে তা বাসের চাকায় থেঁতলে যায়। যে কারণে তার পরিচয় শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দ্রুতগতির একটি মোটরসাইকেল নওদাপাড়ার দিক থেকে শালবাগানের দিকে আসছিলো। অপরদিকে নগরী থেকে একটি বাস নওগাঁর দিকে যাচ্ছিলো। শালবাগান ওয়াসা অফিসের সামনে আহম্মেদ নগরে বাসটি মোটরসাইকেলটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেল চালকের মাথা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আর বাসটি তাকে চাপা দিয়েই পালিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়।
রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার উপ-পরিদর্শক দুলাল হোসেন জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও বাসটিকে ধরতে পারেনি। তাৎক্ষণিকভাবে নিহত মোটরসাইকেল চালকের পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি।
Print Friendly, PDF & Email

Related Articles

Back to top button