১৬ তারিখে খেলা হবে, অবশ্যই আমরা জিতবো: শামীম ওসমান

 

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান আজ সোমবার সংবাদ সম্মেলনে নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন নিয়ে বলেছেন, ‘আগামী ১৬ তারিখে খেলা হবে এবং সে খেলায় অবশ্যই আমরা জিতবো। নারায়ণগঞ্জে শেখ হাসিনার প্রার্থীকে পাশ করাতে হবে, পাশ করাবো ইনশাআল্লাহ। কে প্রার্থী হু কেয়ারস, কলাগাছ না আমগাছ সেটা বিষয় না। দেখবো আমার নৌকা। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। শেখ হাসিনার ঘাঁটি। এখানে অন্য খেলা খেলার চেষ্টা করবেন না।’

চাপে পড়ে সংবাদ সম্মেলন করছেন কী না –  সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি নিজেই ঝড়, এই ঝড়কে চাপ দেওয়ার ক্ষমতা কারও নেই।’

সম্প্রতি শামীম ওসমানকে নারায়ণগঞ্জের সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ‘গডফাদার’ আখ্যা দেন। এ বিষয়ে শামীম ওসমান বলেন, ‘কেউ যদি গডফাদার বলে শান্তি পায়, পাক না। আমি না হয় নীলকণ্ঠ হলাম। তবে ব্রাদার, ফাদার, গডফাদার বলেন, সমস্যা নাই। কিন্তু গডমাদার বলবেন না। আমি পুরুষ।’

শামীম ওসমান আরও বলেন, ‘বিএনপির মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকারকে বলবো, আপনি আপনার কথা বলেন। নারায়ণঞ্জে হাতি নৌকা ডুবিয়ে দিতে পারবে না। এত ক্ষমতা নারায়ণঞ্জে বিএনপির নাই। আমরা হাতি কাঁধে নিয়ে দৌড় দিব, কিন্তু নৌকায় উঠতে দিবো না। নৌকা অস্তিত্বের প্রতীক। নির্বাচন কমিশনের কাছে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। আমি সংসদ সদস্য। আমি বলবো না, ওই প্রার্থীকে ভোট দেন। সেটা ঠিকও হবে না। আমি নিজেও আইনের ছাত্র। কেমন করে ভালো রেজাল্টও করে ফেলেছিলাম, জানি না। যাই হোক, কপালে যার লেখা থাকবে, জনগণ যাকে ভোট দিবে; সে-ই জয় পাবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগ বড় পরিবার, এখানে রাগ থাকবে, অভিমান থাকবে। গালি, মামলা সব ভুলে যেখানে যাওয়ার দরকার গিয়েছি, দাওয়াত দিয়েছি। আমি মানুষ, রোবট না। আমারও খারাপ লাগে। আমার জীবনের সবচেয়ে কষ্টের প্রেস কনফারেন্স এটা।’

সংবাদ সম্মেলনে শামীম ওসমান আরও বলেন, ‘দ্য থিং ইজ দ্যাট আমি সত্য কথা বলতে পছন্দ করি। নানাভাবে আমাকে, আমার দল আওয়ামী লীগকে ক্ষতিগ্রস্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আমি সবসময় বঙ্গবন্ধুর দলে ছিলাম, আছি, থাকবো।’

শামীম ওসমান বলেন, ‘কয়েক দিন আগে ফতুল্লায় ইউনিয়ন পরিষদ ভোট হলো, কেউ টেরও পেল না। আমিও গেলাম না। তখন কোনো কথা উঠেনি। কিন্তু নারায়ণগঞ্জের সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কেন আমাকে বারবার সাবজেক্ট ম্যাটার করা হচ্ছে? আমি কাউকে ব্লেম করি নাই, আল্লাহ সাক্ষী।’

Print Friendly, PDF & Email

Related Articles

Back to top button